“পড় তোমার প্রভুর নামে যিনি তোমাকে সৃষ্টি করেছেন”

এডুগার্ড উচ্চ বিদ্যালয়

Eduguard HIGH SCHOOLs

স্কুল কোডঃ # EIIN নম্বরঃ 554

s c d a
সভাপতির শুভেচ্চা বাণী

‘ভালো মানুষ হও, সাফল্য তোমার পেছনে ছুটবে’- সেই লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠানটি নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। বাংলাদেশের শিক্ষা বিস্তারের ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানটি প্রতিষ্ঠার স্বল্পতম সময়ের মধ্যে এটি একটি অনন্য আসনে অবস্থান নিয়েছে। এডুগার্ড হাই স্কুল একটি স্বনামধন্য ও সুপরিচিত স্কুল। স্কুলটি ২০০৫ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। প্রতি বছর অনেক ছাত্র- ছাত্রী এস এস সি/ এইচ এস সি পরীক্ষায় ভাল ফলাফল অর্জন করে পাস করে যাচ্ছে। স্কুলটি তিন তলা বিল্ডিং বিশিষ্ট ১ টি ভবন এবং ৩ টি টিন-শেড ঘর অবস্থিত। এটি অত্র উপজেলার একটা বড় এবং নামকরা প্রতিষ্ঠান। কলেজের সামনে একটি বড় খেলার মাঠ আছে। এই কলেজে প্রায় ৫০০ জন ছাত্র-ছাত্রী পড়াশোনা করে। ১০ জন অভিজ্ঞতা সম্পন্ন শিক্ষকদের দ্বারা ক্লাসগুলো আধুনিক এবং প্রোজেক্টরের মাধ্যমে ডিজিটাল পদ্ধতিতে শিক্ষা দান করা হয়। কলেজটি সকাল ১০ থেকে বিকাল ৪ তা পর্যন্ত খোলা থাকে। এই কলেজের ফলাফল সবসময় ভাল হয়। আমরা আমাদের কলেজের জন্য গর্বিত। কলেজ প্রতিষ্ঠার পর থেকে শিক্ষার হার এবং আদর্শ বিশেষ করে নারী শিক্ষার ক্ষেত্রে অনেক বৃদ্ধি করা হয। স্কুল থেকে শিক্ষার্থী পাস করে বিভিন্ন খাতে সরকারের হয়ে কাজ করছে এবং দেশের উন্নয়নে জন্য অনেক অবদান রাখছে। কলেজ প্রতিষ্ঠার পর অর্থনৈতিক কার্যক্রমের ত্বরণ অনেক বৃদ্ধি হয়েছে। এখানকার ছাত্রছাত্রী পড়ালেখার পাশাপাশি বির্তক প্রতিযোগিতা ও খেলাধুলায় ও মেধার সাক্ষর রাখছে।এছাড়া তারা রক্তদান কর্মসূচী ও বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ডে অংশগ্রহন করছে।

প্রধান শিক্ষকের স্বাগত বানী

এডুগার্ড হাই স্কুল একটি স্বনামধন্য ও সুপরিচিত স্কুল। স্কুলটি ২০০৫ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। প্রতি বছর অনেক ছাত্র- ছাত্রী এস এস সি/ এইচ এস সি পরীক্ষায় ভাল ফলাফল অর্জন করে পাস করে যাচ্ছে। স্কুলটি তিন তলা বিল্ডিং বিশিষ্ট ১ টি ভবন এবং ৩ টি টিন-শেড ঘর অবস্থিত। এটি অত্র উপজেলার একটা বড় এবং নামকরা প্রতিষ্ঠান। কলেজের সামনে একটি বড় খেলার মাঠ আছে। এই কলেজে প্রায় ৫০০ জন ছাত্র-ছাত্রী পড়াশোনা করে। ১০ জন অভিজ্ঞতা সম্পন্ন শিক্ষকদের দ্বারা ক্লাসগুলো আধুনিক এবং প্রোজেক্টরের মাধ্যমে ডিজিটাল পদ্ধতিতে শিক্ষা দান করা হয়। কলেজটি সকাল ১০ থেকে বিকাল ৪ তা পর্যন্ত খোলা থাকে। এই কলেজের ফলাফল সবসময় ভাল হয়। আমরা আমাদের কলেজের জন্য গর্বিত। কলেজ প্রতিষ্ঠার পর থেকে শিক্ষার হার এবং আদর্শ বিশেষ করে নারী শিক্ষার ক্ষেত্রে অনেক বৃদ্ধি করা হয। স্কুল থেকে শিক্ষার্থী পাস করে বিভিন্ন খাতে সরকারের হয়ে কাজ করছে এবং দেশের উন্নয়নে জন্য অনেক অবদান রাখছে। স্কুল প্রতিষ্ঠার পর অর্থনৈতিক কার্যক্রমের ত্বরণ অনেক বৃদ্ধি হয়েছে। এখানকার ছাত্রছাত্রী পড়ালেখার পাশাপাশি বির্তক প্রতিযোগিতা ও খেলাধুলায় ও মেধার সাক্ষর রাখছে।এছাড়া তারা রক্তদান কর্মসূচী ও বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ডে অংশগ্রহন করছে।

IT CONSULTANT'S MESSAGE

শিক্ষাই জাতির মেরুদন্ড। কাজেই সবার জন্য শিক্ষা অর্জন করা মানুষের মৌলিক অধিকার। এ অধিকারকে যথাযথভাবে বাস্তবায়নের মাধ্যমে বিশ্বের অনেক দেশ আজ উন্নত দেশ হিসেবে উন্নতির চরম শিখরে আরোহণ করেছে। এ ক্ষেত্রে বাংলাদেশ তার কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্য অর্জনে সাধ্যমত চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। যুগের সাথে সংগতিপূর্ণ বিকাশের জন্য আমরা প্রত্যেকেই ভাবি নিজ নিজ সন্তানদের নিয়ে। প্রকৃতির সন্তান মানব শিশুকে পরিশুদ্ধ হতে হয়, পরিপুর্ণ হতে হয় স্বীয় সাধনায়। এ ক্ষেত্রে শিক্ষায় হলো আমাদের মূলমন্ত্র। আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি শিক্ষার মৌলিক উদ্দেশ্য হলো আচরণের কাঙ্ক্ষিত পরিবর্তন। আর এ লক্ষ্যে তাদেরকে সৃজনশীল, স্বাধীন, সক্রিয় এবং দায়িত্বশীল সুনাগরিক হিসেবে গড়ে তোলা। এ জন্য প্রয়োজন যোগ্য শিক্ষকমন্ডলী এবং উপযুক্ত শিক্ষাদান পদ্ধতির সমন্বয়ে একটি শিক্ষাবান্ধব পরিবেশ। আমি বিনয়ের সাথে দাবী করি, লালমনিরহাট সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ে এসব কিছুর সমন্বয় ঘটানো সম্ভব হয়েছে। শিক্ষার্থীদের মজ্জাগত প্রতিভা সহজে বিকাশের জন্য প্রতিষ্ঠানটিতে রয়েছে সাধারণ শিক্ষার পাশাপাশি কম্পিউটার শিক্ষা, সাংস্কৃতিক, আনুষ্ঠানিক, খেলাধুলাসহ নানাবিধ শিক্ষা। তথ্য ও যোগাযোগের প্রযুক্তি (Information and Communication Technology-ICT) মানুষের জীবন ধারণের পদ্ধতিকে বদলে দিয়েছে- জীবনকে করেছে সহজ ও আনন্দময়। শিক্ষাক্ষেত্রেও তথ্য ও যোগযোগ প্রযুক্তি যোগ করেছে নতুন মাত্রা। আইসিটি স্থান করে নিয়েছে গ্রামের বিদ্যালয়ের সেই ছোট্ট শ্রেণিকক্ষেও - যেখানে শিক্ষার্থীরা বই-খাতার পাশাপাশি কম্পিউটারেও শিখতে শুরু করেছে। জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০-এর আলোকে আধুনিক জ্ঞান-বিজ্ঞান এবং সকল ক্ষেত্রে তথ্য ও যোগযোগ প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে নতুন প্রজন্মকে ডিজিটাল বাংলাদেশের যোগ্য রূপকার হিসাবে গড়ে তোলে ‘‘ভিশন ২০২১’’ বাস্তবায়নের জন্য এই ওয়েবসাইট অত্যন্ত সহায়ক ভূমিকা পালন করবে বলে আমি বিশ্বাস করি।

ম্যাপে আমাদের অবস্থান